Thursday, December 14, 2017

১ টাকার ফান্ডের সহায়তায় আল আমিন নিজেই এখন সবজি বিক্রেতা


আল আমিন খুব হাসিখুশি কর্মঠ ছেলে। আর্থিক অনটনের কারনে পড়াশুনা খুব বেশী করা হয়নি। তার বাবা জুতার দোকানে কাজ করে যে উপার্জন করে তা দিয়ে সংসার চলেনা। তাই পরিবারকে সহায়তা করতে আল আমিন সবজির দোকানে টুকটাক কাজ করে। সবজির দোকানের মালিক খুশি হয়ে যা দেয় তাই নিয়ে খুশি থাকে। সেই টাকার পরিমান টাও খুবই অল্প। ৫০/৬০ টাকা থেকে বড়জোর ৭০/৮০ টাকা, যা দিয়ে তার পরিবারের একবেলা আহার জুটানো ও কষ্টকর।  আল আমিনের বড় গুন সে কারো কাছে হাত পাতেনা, খেটে খায়। মনে মনে তারও মাঝে মাঝে হয়তো ইচ্ছা জেগেছে সেও যদি সবজি নিজে কিনে এনে বিক্রি করতে পারতো! কিন্তু তার জন্য যে টাকা প্রয়োজন (৮/১০হাজার) আল আমিনের মতো খেটে খাওয়া কারো জন্য আসলে দুঃস্বপ্নের কাছাকাছি।

১ টাকার ফান্ডের পক্ষ থেকে আল আমিনের মত(কর্মঠ) একজনকে সাহায্য করতে পেরে আমরা আনন্দিত। আল আমিনকে আমরা ১০ হাজার টাকা দিয়েছি যা দিয়ে সে গ্রাম থেকে পাইকারি দরে সবজি কিনে ভৈরবের গাছতলা ঘাট বাজারে সবজি বিক্রি করে প্রতিদিন ২৫০-৩০০ টাকা উপার্জন করতে পারছে। আল আমিন নিজেই এখন সবজি বিক্রেতা । ১ টাকার ফান্ডের Story of Happiness হচ্ছে এটাই ।

আল আমিনের সবজির দোকান
 
আল আমিন যেহেতু দান নিতে চায়না তাই সে প্রতিদিন তার লাভের টাকা থেকে ১ টাকার ফান্ডে ৫০ টাকা করে ফেরত দিয়ে দিচ্ছে ১১ই ডিসেম্বর থেকে। এভাবে সে ২০০ দিন দিবে(১০০০০ টাকা পর্যন্ত) , এরপর থেকে আর ১ টাকাও দিতে হবেনা।


শুধু তাই নয়, আল আমিন ১ টাকার ফান্ডের প্রতি কৃতজ্ঞতা স্বরূপ নিজেও প্রতিদিন ১ টাকার ফান্ডে ৫ টাকা করে জমা দিচ্ছে অন্যকে সাহায্য করার জন্য। আল আমিন ১ টাকার ফান্ডের ১৫০তম সদস্য।

আর ১ টাকার ফান্ডের পক্ষ থেকে সেই ১০০০০ টাকা তুলে দিবো অন্য কোন আল আমিনের হাতে, নতুন কোন Story of Happiness এর শুরু করতে।

No comments:

Post a Comment