Sunday, May 29, 2022

যাকাত ফান্ড থেকে মুরগী ও খোঁয়াড় উপহার


আতাউর রহমান

পিতাঃ আফাজউদ্দিন প্রামাণিক

শাহবাজপুর, সোনাতলা, বগুড়া

পেশাঃ ভ্যান(লোন নিয়ে কিনেছে)চালক।

গৃহকর্মী স্ত্রী ও এক ছেলে(চতুর্থ শ্রেণীতে পড়ে)-এক মেয়ে(প্রথম শ্রেণীতে পড়ে)কে নিয়ে সংসার।

আমাদের মূল টার্গেট, একটা পরিবারের আমিষের ঘাটতি কিছুটা পূরণ করা এবং স্ব-ইচ্ছায় তাদের এই কার্যক্রমে অংশগ্রহণে উদ্বুদ্ধ করা।

তাই দাতার ইচ্ছানুযায়ী এই পরিবারের জন্য ৮টা দেশি মুরগী ও ২টা মোরগ এবং একটা খোঁয়ার উপহার দেওয়া হয়েছে। তারা যদি এ থেকে আমিষের ঘাটতি পূরণের কাজটা চলমান রাখতে পারে, তো ভালো। নাহলেও ক্ষতি নাই।

এটলিস্ট ঐ কয়টা মোরগ-মুরগি তো পরিবারসহ খেতে পারবে। তাছাড়া বাড়িতে যখন একটা খোঁয়াড় পড়ে থাকবে, তখন নিশ্চয় তা ফেলে রাখবেনা..

তবে অভাব-অনটনের সংসারে এই সাহায্য কাজে লাগবে বলে জানিয়েছেন আতাউর রহমান। এবং উনি মুরগী পালন করবেন বলেই কথা দিয়েছেন।

আমরা ফয়সাল ইবনে খায়ের ভাইয়ের কাছে কৃতজ্ঞ, উনার যাকাত এর একটি অংশ Onetakafund এ দিয়ে অসচ্ছল কাউকে স্বাবলম্বী হতে পাশে থাকার জন্য। 
 
রাশেদুজ্জামান রন ভাইকে ধন্যবাদ দিয়ে ছোট করবো না, উনার সার্বিক সহায়তা ছাড়া আমাদের কাজ এতো সহজ হতোনা। 
 
** ধন্যবাদ মামুনুর রশিদকে মুরগী ও খোয়ার হস্তান্তর করার জন্য

 


ভালো কিছুর আশায় আরেকটি Story of Happiness

হেল্প(HELP=High Encouragement of Low Performer)->আমাদের ড্রিম প্রোজেক্ট। এর মাধ্যমে আমরা মূলত একটা পরিবারের প্রচেষ্টাতে সামান্য সহায়তা করবো। যাতে তার পরিশ্রমটা স্বার্থক হয়।

এই প্রোজেক্টের মাধ্যমে সহায়তা পাওয়া পরিবারটিকে আমরা এক বছর পর্যবেক্ষণে রাখবো। এরপর বিচার-বিশ্লেষণের মাধ্যমে পরবর্তী পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে। আশাকরছি দুই বছরের মধ্যে পরিবারটি 'স্বাবলম্বী পরিবার' হিসাবে সমাজে অবদান রাখবে।



গত পাঁচ বছর নানা প্রকার অভিজ্ঞতা অর্জন ও পরীক্ষা-নিরীক্ষার মাধ্যমে আমরা উপলব্ধি করেছি যে, শূন্য পাত্রে কিছু রাখা যাবেনা।

-> এই ভদ্রমহিলা কর্মঠ মানুষ। স্বামী ভ্যান(লোন করে কেনা) চালক। ছোট মেয়েটি স্কুলে পড়ে। বড় মেয়েটিকে বিয়ে দিয়েছে। ছোট এই পরিবারটিকে একটু সাহস দেওয়ার জন্য ছিল আমাদের এই উপহার। আশাকরি সামনে ভালো কিছু হবে...


*আমরা হেল্প প্রোজেক্টের মাধ্যমে কোনো পরিবারের পুরো দায়িত্ব নিবোনা। শুধু তার পাশে থেকে একটু সাহস যোগাবো, ব্যস!




 

উপরের কথা গুলো রাশেদুজ্জামান রণ ভাইয়ের ফেসবুক পেজ থেকে নেওয়া। রাশেদুজ্জামান রণ ভাইয়ের প্রত্যক্ষ তত্ত্বাবধানে আমরা মোছাঃ শাপলা বেগমের(সোনাতলা, বগুড়া) পরিবারকে এই দুইটি ছাগল উপহার দিয়েছি আমাদের যাকাত ফান্ড থেকে।

রাশেদ ভাইয়ের মতো আমরাও আশা করি "সামনে ভালো কিছু হবে"।